পাতা:বিভূতি রচনাবলী (একাদশ খণ্ড).djvu/৩৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


खहैष खण Y& —বেশ, ভাল কথায় বুঝিয়ে বল না, কে মান করেছে ? অপমান করবার দরকার কি ? —বুঝিয়ে বলি নি ? অনেক বলেছি। শুনতো যদি তবে আজ আমায় এ কাজ করতে হোত না । কুরবাল স্বা-ই বলুক, সে মেয়েমানুষ, বোঝেই বা কি—আমি কিন্তু আত্মপ্রসাদ অনুভব করলাম সে রাত্রে । আমি থাকতে এ গ্রামে ও সব ঘটতে দেব না। একটা পুরুষমানুষ ভুলিয়ে একটা সরলা মেয়ের সর্বনাশ করবে, এ আমি কখনই হোতে দিতে পারি নে। স্বরৰালা এখানে আমার সঙ্গে এক মত নয়। সে বলে রামপ্রসাদের দোষ নেই। শাস্তিই ওকে ভুলিয়েছে। অসম্ভব কথা, শাস্তিকে আমি এতটুকু বেলা থেকে দেখে আসছি, মাখম মাস্টারের স্কুলে যখন পড়ি, শাস্তি তখন ছোট শাড়ি পরে সাজি হাতে পাঠশালার বাগানে ফুল তুলতে আসতো, আঁচলে বেঁধে গুগলি কুড়িয়ে নিয়ে যেতো নাক-ছেদী গিরিদের ড়োবা থেকে—সেই শাস্তি কাউকে ভোলাতে পারে । সকালে উঠে আমি দূরগ্রামে ডাকে চলে গেলাম। ফিরে আসতেই স্বরবালা বললে— আজ খুব কাগু হয়ে গেল—কি হাঙ্গামাই তুমি বাধিয়েছ । —কি হোল ? —শাস্তি ঠাকুরঝি সকালে এসে হাজির ৷ কেঁদে কেটে মাথা কুটে সকালবেলা সে এক কাগুই বাধালো। আমার পায়ে ধরে সে কি কান্না, বলে—শশাঙ্কদা এ কি করলেন ? আমি তাকে বিশ্বাস করে সব কথা বললাম, অথচ তিনি— স্বরবালা সব কথা জানে না, আমি বললাম— ওর ভুল। ওর কোন গোপন কথা সেখানে প্রকাশ করিনি— te স্বরবালা অবাক হয়ে বললে—কর নি ? —কক্ষনে না । স্বরবালা আশ্বস্ত হওয়ার স্বরে বললে—যাক, এ কথা আমি কালই বলব শাস্তিকে । আমি রেগে বললাম-ওকে আর বাড়ী ঢুকতে দিও না —ছিঃ ছিঃ, মানুষের ওপর অত কড়া হতে নেই। তুমি তাকে কিছু বলতে পারে। তোমার বাড়ী এলে ? —খুব পারি, যার চরিত্র নেই সে আবার মানুষ । —আমার একটা কথা রাখবে লক্ষ্মীটি ? —কি f —থাকগে তোমার ডাক্তারি। চল এ গা থেকে আমরা দিনকতক অন্য জায়গায় চলে স্বাই । কনকেন বল তো ?