পাতা:বিভূতি রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড).djvu/২৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২৩৪ বিভূতি-রচনাবলী বল্লভপরের ভাদুড়ীদের বাড়ি । মাজদিয়া স্টেশনে নেমে তিন ক্লোশ গরর গাড়িতে গিয়ে কি একটা ছোট্ট নদীর ধারে । তাদেরও অবস্হা খারাপ, আগে একসময় ও অঞ্চলের ভাদুড়ীদের নামডাক ছিল, সে নাকি অনেককাল আগে । এখন সতেরো সরিকে ভাগ হয়ে আর সবাই মিলে বাড়ি বসে খেয়ে বেজায় গরীব হয়ে পড়েছে । রাজলক্ষী বললে, সেখানে তোমায় নিয়ে যায় না শরৎদি । —কে নিয়ে যাবে ভাই ? —তোমার দেওর ভাশার নেই ? —আপন ভাশরেই তো রয়েছেন । হলে হবে কি, তাঁর বেজায় পরী পাল্লা—সাত মেয়ে, পাঁচ ছেলে—নিজেরগলো সামলাতে পারেন না—খেতে দিতে পারেন না—আমাকে নিয়ে যাবেন । আজ তেরো বছর কপাল পড়েছে, কখনও একখানা থান কাপড় দিয়ে খোঁজ করেন নি। আর খোঁজ করলেও কি হত, আমি কি বাবাকে ফেলে সেখানে গিয়ে থাকতে পারি ? সে গাঁয়ে আমার মনও টে'কে না । —যদি এখন তারা নিতে আসে শরৎদি ? —আমি ইচ্ছে-সখে যাইনে—তবে ভাশীর যদি পেড়াপীড়ি করেন—না গিয়ে আর উপায় কি ? —‘কতদিন থাকতে পারো ? বলো না শরৎদি ? —কেন বল তো, আজ আবার তুই আমার বশরবাড়ি নিয়ে পড়লি কেন ? রাজলক্ষী মুখে অচিল দিয়ে দণ্টমির হাসি হেসে উঠল। তার পর বললে, দাও গুছিয়ে দিই কি জিনিপত্তর আছে—মা বলছিল— —কি বলছিলেন খড়ীমা ? —ভাগ্যিস কাকাবাব এসে গিয়েছেন তাই । নইলে তোমার একা যাওয়া উচিত হত না প্রভাসবাবর সঙ্গে— শরতের চোখ দটি যেন ক্ষণকালের জন্যে জনলে উঠল । মুখের রং গেল বদলে—রাজলক্ষয়ী জানে শরৎ দিদি রাগলে ওর মখে রাঙা হয়ে ওঠে আগে । রাজলক্ষী ভয় পেল মনে মনে, হয়তো তার এ কথা বলা উচিত হয় নি, কিন্তু বলতে তাকে হবেই শরৎদির ভালোর জন্যে। না বলে সে পারে না । কতবার তার মনে হয়েছে—শরৎ দিদি তার ছোট বোন, সে-ই এই সংসারানভিজ্ঞা বালিকাপ্রকৃতির দিদিকে সব বিপদ থেকে, কলঙ্ক থেকে বাঁচিয়ে নিয়ে বেড়াবে। শরৎ কড়া সরে বললে, কেন উচিত হত না, একশো বার হত । খড়ীমাকে গিয়ে বোলো রাজলক্ষী, শরৎ যেখানে ভাল ভাবে সেখানে আপনার লোকের মতই ব্যবহার করে—পর ভাবে না। তার মন যেখানে সায় দেয় সেখানে যেতে তার এতটুকু ভয় নেই—আমি কারো কথা— রাজলক্ষী সভয়ে বললে, ওকি শরৎদি, তোমার পায়ে পড়ি শরৎদি, অমন চলে যেও না, श्8ि —তবে তুই এমন কথা বলিস কেন, খড়ীমাই বা কেন বলেন ? তিনি কি ভাবেন— —শোনো আমার কথা । মা সে কথা বলে নি । কিন্তু একা মেয়েমানুষ যদি বিপদে পড় তখন তোমায় দেখবে কে ? সেই কথাই মা বলছিল । তুমি যত ভাল ভাবো লোককে সকলেই অত ভাল নয় । তুমি সংসারে কি বোঝ ? মার বয়েস তোমার চেয়ে তো কত বেশী—সেদিক থেকে মা যা বলেছে মিথ্যে বলে নি। লক্ষী দিদি, অমন রাগে না, রাগলে সংসারে কাজ চলে ? আমি তোমায় কত ভালবাসি, মা কত ভালবাসে—তা তুমি বুঝি জানো না ? মা আমায় গাঁয়ে কারোর বাড়ি যেতে দেয় না—কিন্তু তোমাদের বাড়ি আসতে চাইলে