পাতা:বিভূতি রচনাবলী (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৩৩৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিভূতি-রচনাবলী این o (۹ নন্দ এ-কথার কিছু সন্তোষজনক জবাব দিতে পারিল না। রাঘব বলিলেন—বউমার হাতে কিছু নেই ? —৪ কোথায় পাবে! তবে বিয়ের দরুণ গয়ন কিছু আছে! ওর ওই হতবাক্সটাতে আছে যা আছে। —জায়গা ভালো নয়। গয়নাগুলো বাক্সে রাখাই আমি বলি বেশ । পাচজন টের না পায় । আমি আবার থাকি গায়ের এক কোণে পড়ে—আর এই তো সময় যাচ্ছে। ও-গুলো আগে সাবধান করা দরকার । দিন দুই পরে নন্দলাল মামাকে বলল—আমাকে আজ একবার বেরুতে হচ্ছে মামা । একবার বীজপুরে যাবো। লোকে-কারখানায় একটা সন্ধান পেয়েছি—একটু দেখে আসি। ননালাল ইতিপূর্বেও বীজপুরের কারখানায় কাজ খুজিয়াছে কিন্তু তেমন লেখাপড়া জানে না বলিয়া কাজ জোটাইতে পারে নাই। বলিল—লোকে-কারখানায় যদি মুগুর ঠাঙাতে পারি তবে এক্ষুনি কাজ জোটে, ভদরলোকের ছেলে, তা তো আর পেরে উঠি নে । এই আমার সঙ্গে পাঠশালায় পড়তে মহেন্দ্র, তারা জেতে যুগী। সে বাইসম্যানি করছে, সাড়ে সাত BBS BBS BBSBB BBB S BB BBBB BSBB BBS BBBB BBBB BB BBB কাছে নিয়ে যাবে, তা আমার দ্বারা কি আর হাতুড়ি পিটুনে চলবে ? পরদিন খুব ভোরে নন্দলাল বাটি আপিল। সে রাত্রেই স্টেশনে নামিয়াছিল কিন্তু অন্ধকারে এতটা পথ আসিতে না পারিয়া সেখানে শুইয়াছিল, শেযরাত্রের দিকে জ্যোৎস্ব উঠিলে রওন। হইয়াছে। নন্দলাল বাড়ি ফিরিয়া দেখিল তখনও মামা উঠেন নাই, পুবের ভিটার ঘরে স্ত্রীও তখন ঘুমাইতেছে। স্ত্রীকে জাগাইতে গিয়া দেখিল, গহনার বাক্স ঘরের মধ্যে নাই। স্ত্রীকে উঠাইয়া বলিল—গহনার বাক্স কোথায় ? স্ত্রী অবাক হইয়া গেল। বলিল—আহা, ঠাট করা হচ্ছে বুঝি ? এই তো শিয়রে এইথেনে ছিল। লুকিয়েছ বুঝি ?-- কিছুক্ষণ পরে স্বামী-স্ত্রী দুজনেই মাথায় হাত দিয়া বসিল। ঘরের কোথাও বাক্স নাই। খোঁজাখুঁজি অনেক করা হইল। মামাও বিছানা ছাড়িয়া উঠিয়া আসিলেন। চুরির কথা শুনিয়া অবাক হইলেন, নিজে চারিদিকে ছুটাছুটি করিয়া বাক্সের বা চোরের খোজ করিতে লাগিলেন। প্রতিবেশীরাও আসিল, থানাতেও খবর গেল—কিছুই হইল না। ননালালের স্ত্রীর বয়স কুড়ি একুশ । রং টকটকে ফরসা, মুখ সুশ্ৰী, বড় শাস্ত ও সরল মেয়েটি। তার বাপের বাড়ির অবস্থা বেশ ভাল, কিন্তু বুদ্ধ বয়সে তৃতীয় পক্ষে বিবাহ করিয়া তার বাপ পূর্ব দুই পক্ষের সম সস্তুতিদিগকে এখন আর দেখিতে পারেন না। বিবাহের সময় এই গহনাগুলি তিনিই মেয়েকে দিয়াছিলেন ; এই হিসাবে দিয়াছিলেন যে, গহনাগুলি লইয়। মেয়ে যেন বাপের বাড়ির উপর সকল দাবী-দাওয়া ত্যাগ করে । পিতার কর্তব্য এইখনেই তিনি শেষ করিলেন।