পাতা:বিশ্বপরিচয়-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিশ্বপরিচয় সব রং মিলে সূর্যের অালো সাদা, তবে কেন নানা জিনিসের নানা রং দেখি । তার কারণ সব জিনিস সব রং নিজের মধ্যে নেয় না, কোনো-কোনোটাকে বিনা ওজরে বাইরে বিদায় করে দেয় । সেই ফেরত-দেওয়া রংটাই আমাদের চোখের লাভ । মোট ব্লটিং যে রসটা শুষে ফেলে সে কারো ভোগে লাগে না, যে রসটা সে নেয় না, সেই উদ্বত্ত রসটাই আমাদের পাওনা । এও তেমনি । চুনি পাথর সূর্যকিরণের আর সব রকম ঢেউকেই মেনে নেয়, ফিরিয়ে দেয় লাল রংকে । তার এই ত্যাগের দানেই চুনির খ্যাতি । যা নিজে আত্মসাৎ করেছে তার কোনো খ্যাতি নেই । লাল রংটাই কেন যে ও নেয় না, আণর নীল রঙের পরেই নীলা পাথরের কেন সম্পূর্ণ বৈরাগ্য এ প্রশ্নের জবাব ওদের পরমাণুমহলে লুকানো রইল। সূর্যের সব ঢেউকেই পাকা-চুল ফিরে পাঠায় তাই সে সাদা, কাচা-চুল কোনো ঢেউই ফিরে দেয় না, অর্থাৎ আলোর কোনো অংশই তার কাছ থেকে ছাড়া পায় না, তাই সে কালো । জগতের সব জিনিসই যদি সূর্যের সব রংই করত আত্মসাৎ তাহলে সেই কৃপণের জগৎটা দেখা দিত কালো হয়ে, অর্থাৎ দেখাই দিত না । যেন খবর বিলোবার সাতটা পেয়াদাকেই পোস্টমাস্টার বন্ধ করে রাখত । অথচ কোনো অালোই যদি না নিত সবই হোত সাদ, তবে সেই একাকারে সব জিনিসেরই প্রভেদ যেত ঘুচে । যেন ما لا