পাতা:যশোহর-খুল্‌নার ইতিহাস প্রথম খণ্ড.djvu/৪২৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

অষ্টম পরিচ্ছেদ—হুসেন সাহ । বঙ্গেশ্বর মামুদ্র সাহের মৃত্যুর পর (১৪৬০) তৎপুত্র বাৰ্ব্বাক সাছ কয়েক বৎসর রাজত্ব করেন। তিনিই প্রথম আবিসিনীয় বা হাবসী দাস ও খোজাদিগকে রাজকাৰ্য্যে নিযুক্ত করেন । হাবসাদিগের দ্বারা একদল উৎকৃষ্ট অশ্বারোহী ও পদাতিক সৈন্ত গঠিত হইয়াছিল । ইহারা নগররক্ষী ও শরীররক্ষী রূপে প্রবল পরাক্রান্ত হইয়াছিল । সুযোগ পাইয়া দলে দলে হাবসীগণ গৌড়ে প্রবেশ করিতে লাগিল এবং নগরে বিষম অশান্তির স্বষ্টি হইল । * বাৰ্ব্বাকের বংশধরেরা ১৪৮৭ খৃষ্টাব্দ পর্য্যন্ত কোন প্রকারে শাসনকাৰ্য্য সম্পন্ন করিয়াছিলেন বটে, কিন্তু আর পরিলেন না। হাবলী খোজাগণ অন্দরে প্রবেশ লাভ করিয়া স্বেচ্ছামত প্রভুহত্যা করত যাহাকে ইচ্ছা রাজতক্তে বসাইতে লাগিল । ইহাদের অত্যাচারে অনবরত গুপ্তহত্যা চলিল। অবশেষে তাহারা রাজবংশ নিপাত করিয়া আপনাদের একজনকে রাজসিংহাসনে বসাইল ; তখন দেশময় এক ভীষণ অরাজকতা উপস্থিত হইল। ১৪৯৩ খ্ৰীষ্টাব্দে হুসেন সাহ এই অরাজকতা হইতে দেশের উদ্ধার সাধন করেন। - হুসেন সাহের ত্রিংশবর্ষব্যাপী রাজত্বকাল বঙ্গেতিহাসের একটি স্মরণীয় যুগ। দেশে শান্তি, প্রজার সমৃদ্ধিবৃদ্ধি এবং সাহিত্য ও ধন্মের উন্নতি— ইহাই এ যুগের প্রকৃতি। দুঃখ কষ্টের মধ্যে কোন সুখশান্তিময় যুগের প্রসঙ্গ উত্থাপিত হইলে, যশোহর-খুলনার লোকে সাধারণতঃ বলিয়া থাকে, “সে হুসেন সাহের আমল আর নাই।” মরুভূমির মধ্যে ওয়েসিসের মত পাঠানযুগে হুসেন সাহের রাজত্ব। শ্রীচৈতন্তের জন্ম ও ধৰ্ম্মপ্রচারে এই যুগে বঙ্গ পবিত্র হইয়াছিল। আর সে পবিত্র ধৰ্ম্মের উৎসাহদাতা হইয়া হুসেন সাহ বিখ্যাত হইয়া রহিয়াছেন । তাই জনৈক বৈষ্ণব কবি গাহিয়াছেন ঃ — "শ্ৰীযুক্ত হসন, জগতভূষণ, সেহ এ রস জান। পঞ্চ গৌড়েশ্বর, ভোগপুরন্দর, ভণে যশোরাজ খান ॥” • Through caprice of fortune these low foot soldiers for a considerable time played an important part in the state “Ain-i-Akbari, Jarret, Vol. II p. 49 "ফেরিয়া ডি সোসা"র ইতিহাসে এ যুগের জ্বলন্ত বিবরণ প্রদত্ত হইয়াছে। গৌড়ের इंउिशम २००१ः ।