পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/১৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সমালোচন । めS" মরমে মদন বাণ দুহে অগেয়ান, কি বিধি কৈল নিরমাণ ॥ মন্দ মলয়জ পবন বহে মৃত্যু ও সুখ কে করু অস্ত । সরবস-ধন দোহার দুহু জন, কহয়ে রায় বসন্ত ॥ মৃদু বাতাস বহিতেছে, কুঞ্জে জ্যোংস্কা ফুটিয়াছে, চাদনী রাত্রে কোকিল ডাকিতেছে, এবং সেই কুঞ্জে, সেই বাতাসে, সেই জ্যোৎস্নায়, সেই কোকিলের কুহুরবে, কুসুম-শয়ানে, মুদিত নয়ানে, দুটি উলসিত অলসিত অরবিন্দের মত স্যামের কোলে রাধা—চাদের উপরে চাদ ঘুমাইয়া আছে। কি মধুর! কি সুন্দর! এত সৌন্দৰ্য্য স্তরে স্তরে একত্রে গাথা হইয়াছে—সৌন্দর্য্যের পাপড়ির উপরে পাপড়ি বিন্যাস হইয়াছে যে, সবস্থদ্ধ লইয়া একটি সৌন্দর্য্যের ফুল, একটি সৌন্দর্য্যের শতদল ফুটিয়া উঠিয়াছে। “ও স্বথ কে করু অন্ত” এমন মিলন কোথায় হইয়া থাকে ! বসন্তরায়ের কবিতায় আর একটি মোহমন্ত্র আছে, যাহা বিদ্যাপতির কবিতায় সচরাচর দেখা যায় না। বসন্তরায় প্রায় মাঝে মাঝে বস্তুগত বর্ণনা দূর করিয়া দিয়া এক কথায় এমন একটি ভাবের আকাশ খুলিয়া দেন, যে, আমাদের কল্পনা পাথ ছড়াইয়া উড়িয়া যায়, মেঘের মধ্যে হারাইয়া যায় ! এক স্থলে আছে—“রায় বসন্ত কহে ওরূপ পিরীতিময়।” রূপকে পিরীতিময় বলিলে যাহা বলা হয়, আর কিছুতে তাহার অপেক্ষ অধিক বলা যায় না । যেখানে বসন্তরায় শু্যামের রূপকে বলিতেছেন— কমনীয়া কিশোর কুসুম অতি সুকোমল কেবল রস নিরমাণ । সেখানে কবি এমন একটি ভাব আনিয়াছেন, যাহা ধরা যায় না, ছোয়া যায় না। সেই ধরা-ছোয়া দেয় না—এমন একটি ভাবকে ধরিবার জন্য কবি যেন আকুল ব্যাকুল হইয়া পড়িয়াছেন। "কমনীয়” “কিশোর” “স্বকোমল” প্রভৃতি কত কথাই ব্যবহার করিলেন, কিছুতেই কুলাইয়া উঠিল না—অবশেষে সহসা বলিয়া ফেলিলেন “কেবল রস নিরমাণ !” কেবল তাহা রসেই নিৰ্ম্মিত হইয়াছে, তাহার আর আকার প্রকার নাই। শ্ৰীকৃষ্ণ রাধাকে বলিতেছেন – আলো ধনি, সুন্দরি, কি আর বলিব ? তোমা না দেখিয়া আমি কেমনে রহিব ?