পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গোড়ায় গলদ ২২৩ আমার প্রবেfধলহরী, বারবেলাকথন, তিথিদোষ খণ্ডন, প্রায়শ্চিত্তবিধি, এবং নূতন পঞ্জিকা আপনাকে পাঠিয়ে দেব— আজ তবে আসি । [ প্রস্থান .নিবারণ। না; লোকটার বিদ্যে আছে । বাচা গেল, একটি মনের মতো সংপাত্র পাওয়া গেল। কমলের জন্তে আমার বড়ো ভাবনা ছিল । | ইন্দুমতীর প্রবেশ ইন্দুমতী । বাবা, তোমার হল ? নিবারণ। ও ইন্দু, তুই তো দেখলিনে— তোরা, সেই ষে বিনোদবাবুর লেখার এত প্রশংসা করিস তিনি আজ এসেছিলেন । ইন্দুমতী । আমার তো আর খেয়ে দেয়ে কাজ নেই, তোমার এখানে যত রাজ্যির অকেজো লোক এসে জোটে আর আমি আড়াল থেকে লুকিয়ে লুকিয়ে তাদের দেখি ! আচ্ছা বাবা, চন্দ্রবাবু বিনোদবাবু ছাড়া আর একটি যে লোক এসেছিল – বদচেহারা লক্ষ্মীছাড়ার মতো দেখতে, সে কে ? নিবারণ। তবে তুই যে বলছিলি আড়াল থেকে দেখিসনে ? বদ চেহারা আবার কণর দেখলি । বাবুটি তো দিব্যি বেশ ফুটফুটে কাতিকটির মতো দেখতে । র্তার নামটি কী জিজ্ঞাসা করা হয়নি । ইন্দুমতী । তাকে আবার ভালো দেখতে হল ? দিনে দিনে তোমার কী যে পছন্দ হচ্ছে বাবা । এখন নাইতে চলো । [ নিবারণের প্রস্থান না, সত্যি, দেখে চোখ জুড়িয়ে যায়। যদি কার্তিককে এর মতন দেখতে হয় তা হলে কাতিককে ভালো দেখতে, বলতে হবে । মুখে একটি কথা ছিল না, কিন্তু কেমন বসে বসে সব দেখছিল আর মজা করে মুখ টিপে টিপে হাসছিল— ন সত্যি, বেশ হাসিখানি, বাবা যেমন, একবার জিজ্ঞাসাও করলেন না তার নাম কী, বাড়ি কোথায়। আর কোথা থেকে যত সব নিমাই নেপাল নিলু জুটিয়ে নিয়ে আসেন । বাবা যখন মতি হালদারের সঙ্গে বিনোদবাবুর তুলনা করছিলেন তখন সে বিনোদবাবুর মুখের দিকে চেয়ে চেয়ে কেমন হাসছিল । আর, বাবা যখন বিনোদবাবুর ছেলের কথা জিজ্ঞাসা করছিলেন তখন কেমন— আমি ককখনো নিমাই গয়লাকে— সেই বুড়ে ডাক্তারের ছেলেকে বিয়ে করব না । ককখনো না । সেই বুড়োটার উপর আমার এমন রাগ ধরছে — আজ একবার ক্ষান্তদিদির কাছে যেতে হচ্ছে, তার কাছ থেকে সমস্ত সন্ধান পাওয়া যাবে। هي جة سسسس ت\