পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গোড়ায় গলদ २ (११ छूर्ष यह প্রথম দৃশ্য স্থসজ্জিত গৃহ বিনোদবিহারী বিনোদবিহারী। এরা বেছে বেছে এত দেশ থাকতে আমাকে উকিল পাকড়ালে কী করে আমি তাই ভাবছি। আমার অদৃষ্ট ভালো বলতে হবে। এখন টিকতে পারলে হয়। যখন মেয়ে প্রভু তখন একটু একটু আশা হয়—একবার কোনো সুযোগে মনটি জোগাড় করতে পারলে স্থায়িত্ব সম্বন্ধে আর কোনো ভাবনা নেই । তা বলি, স্ত্রীলোকের থাকবার স্থান এই বটে। ওরা যে রানীর জাত, দারিদ্র্য ওদের আদবে শোভা পায় না । পুরুষমানুষ জন্মগরিব—সাজসজ্জা ঐশ্বৰ্ষ অলংকার আমাদের তেমন মানায় না । সেই জন্যই তো লক্ষ্মী যেমন সৌন্দর্ঘের দেবতা তেমনি ধনের দেবতা । শিবটা হল ভিক্ষুক আর দুর্গা হলেন অন্নপূর্ণ । মেয়েমানুষ একেবারে ভরা ভাণ্ডারের মাঝখানে এসে দাড়াবে চারি দিক ঝলসে দেবে— কোথাও ষে কিছু অভাব আছে তা কারো চোখে পড়বে না, মনে থাকবে না। আর আমরা গোলাম ওঁদের জন্যে দিনরাত্রি মজুরি করে মরব। বাস্তবিক, ভেবে দেখতে গেলে পুরুষরা যে এত বেশি খেটে মরে সে কেবল মেয়েরা খাটবার জন্যে হয়নি বলে,—পাছে ওঁদেরও খাটতে হয়, সেই জন্যে পুরুষকে পুরুষ আর মেয়ে দুয়ের জন্যেই একলা খেটে দিতে হয়—এই জন্যেই পুরুষের চেহারা এবং ভাবখানা এমন চোয়াড়ের মতো—কেবল খেটে খাবার উপযুক্ত—খাটুনির মতো এমন আর কিছু তাকে শোভা পায় না। রানী বসন্তকুমারীকে বোধ করি এই অতুল ঐশ্বর্ষেরই উপযুক্ত দেখতে হবে। আমি বেশ দেখতে পাচ্ছি তার এমন একটি মহিমা আছে যে, তার পায়ের নিচে পৃথিবী নিজের ধুলোমাটির জন্তে ভারি অপ্রতিভ হয়ে পড়ে আছে। কী করবে, বেচারার নড়ে বসবার জায়গা নেই। ঘোমটা পরিয়া কমলমুখীর প্রবেশ যা মনে করেছিলুম তাই বটে। আহা, মুখটি দেখতে পেলে বেশ হত –আপনি আমাকে ডেকে পাঠিয়েছেন ?

  • .