পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ষোড়শী জীবানন্দ । তার পরে ? এককড়ি। মহাবীর সিংকে সঙ্গে দিয়ে হুজুরের পালী বেহারাদের পাঠিয়েটি তাকে ধরে আনতে । জীবানন্দ (মদ্যপান করিয়া) ঠিক হয়েচে । তোমাদের এখানে বোধ করি বিলিতি মদের দোকান নেই। তণ না থাক্, যা আমার সঙ্গে আছে তাতেই এ ক’টা দিন চলে যাবে। কিন্তু আরও একটা কথা আছে এককড়ি । এককড়ি । আজ্ঞে করুন ? জীবানন্দ । দেখ এককড়ি, আমি বিবাহ—ই –বিবাহ আমি করিনি—বোধ হয় কখনো করবও না । ( একটু পরে ) কিন্তু তাই বলে আমি ভীষ্মদেব—বলি মহাভারত পড়েচ ত ? তার ভীষ্মদেব সেজেও বসিনি—শুকদেব হয়েও উঠিনি— বলি কথাটা বুঝলে ত এককড়ি ? ওটা চাই ! - এককড়ি লজ্জায় মাথা হেঁট করিয়া একটুখানি ঘাড় নাড়িল । জীবানন্দ । অপর সকলের মত যাকে তাকে দিয়ে এ-সব কথা বলাতে আমি ভালোবাসিনে, তাতে ঠকতে হয় । আচ্ছা এখন যাও । এককড়ি । আমি তারাদাসকে দেখি গে । সে এর মধ্যে প্রজ বিগড়ে না দেয় । [ যাইতেছিল ] জীবানন্দ । প্রজা বিগড়ে দেবে ? অামি উপস্থিত থাকতে ? এককড়ি । হুজুর, পারে ওরা । জীবানন্দ । তারাদাসকেই ত জানি, আবার ‘ওরা এল কারা ? এককড়ি । চঙ্কোত্তির মেয়ে ভৈরবী । নইলে চকোক্তিমশাই নিজে তত মন্দ লোক নয় ; কিন্তু মেয়েটাই হচ্চে আসল সৰ্ব্বনাশী । দেশের যত বোম্বেটে বদমাসগুলো হয়েচে যেন একেবারে তার গোলাম । জীবানন্দ । বটে ! কত বয়স ? দেখতে কেমন ? ঘরের মধ্যে ক্রমশঃ সন্ধ্যার আবছায়া ঘনাইয়া আসিতে লাগিল । ] এককড়ি। বয়স পঁচিশ-ছাব্বিশ হতে পারে। আর রূপের কথা যদি বলেন হুজুর ত সে যেন এক কাটখোট্টা সিপাই ! না আছে মেয়েলি ছিরি, না আছে মেয়েলি ছাদ । যেন চুয়াড়, যেন হাতিয়ার বেঁধে লড়াই করতে চলচে । তাতেই ত দেশের ছোটলোকগুলো মনে করে গড়ের উনিই হচ্চেন সাক্ষাৎ চণ্ডী । জীবানন্দ (উৎসাহ ও কৌতুহলে সোজা উঠিয়া বসিয়া ) বল কি এককড়ি ? ভৈরবীর ব্যাপারটা কি খুলে বল ত শুনি ? $ sथे-२