পাতা:শোধবোধ-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৭২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রথম অঙ্গ শোধ-বোধ চতুর্থ দৃশু বোধ হ’লো, তিনি এই ব্যাপাবে অত্যন্ত সস্তুষ্ট হ’লেন—তোমাব প্রতি যে টান নেই, এমন তো দেখা গেল না। এমন কি, আমি চলে আসবাব সময় তিনি আমাকে ব’ল্লেন, সতীশ আজকাল আমাদেব সঙ্গে দেখা করতে আসে না কেন ? আগবে একটা সুখবব আছে সতীশ, তোমাকে যে অণপিসে কাজ কবিযে দিয়েছি, সেখানকাব বডো সাহেব তোমাব খুব সুখ্যাতি ক’রছিলেন। সতীশ । সে অামাব গুণে নয়। তোমাকে ভক্তি কবেন ব’লেই আমাকে এত বিশ্বাস কবেন । প্রস্থান । শশধর । ওবে বামচবণ, তোব মা ঠাকুবাণীকে একবাব ডেকে দে তো । সুকুমাবীব প্রবেশ সুকুমাৰী। কি স্থিব ক’লে ? শশধব । একটা চমৎকণব প্ল্যান ঠাউবেচি । সুকুমাৰী। তোমাব প্ল্যান যত চমৎকাব হবে, সে আমি জানি। যা গে’ক, সতীশকে এ বাডি থেকে বিদায় ক’বেচে তো ? শশধব । তাই যদি না ক’ববো, তবে আবে প্ল্যান কিসেব ? আমি ঠিক ক’বেচি, সতীশকে আমাদেব তবফ মাণিকপুব লিখে পডে’ দেবো— তা’ হ’লেই সে স্বচ্ছন্দে নিজের খবচ চালিযে আলাদা হ’মে থাকতে পারবে। তোমাকে আব বিবক্ত ক’ববে না । ভুকুমাৰী । আহা, কি সুন্দব প্ল্যানই ঠাউবেচে । সৌন্দর্য্যে আমি একেবাবে মুগ্ধ! না, না, তুমি অমন পাগলামি ক’বতে পাববে না , আমি বলে’ দিলেম । ૭ના ]