পাতা:শ্রীশ্রীহরি লীলামৃত.djvu/২৩৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিশিষ্ট খণ্ড । গোলোক বিহারী হরি পুত্র রূপ হ’ল । দেখিবাবুে দেবগণ কৈলাসেতে এল ॥ শঙ্করের পুত্ৰ হ’ল শঙ্কট ভঞ্জন । বাঞ্ছাপূর্ণ-কারী হরি জগৎ রঞ্জন। ভবের আরাধ্য পুত্র পাইল ভবানী। সকলে দেখিল কিন্তু আসিলনা শলি ॥ সে কারণ মহাদেবী মনে হ’ল রোষ । হেন পুত্ৰ পাইলাম শণি অসন্তোষ । তাহাগুনি শণি যায় তাহাকে দেধিতে । তার নারী ঋতুমতী ছিল সে দিনেতে ॥ শণির রমণী কয় আমি ঋতুমতী। ঋতু রক্ষা সময় হয়েছে কল্প রতি । শপি কহে যা’ব আমি কৈলাস পৰ্ব্বতে । হরি হন দুর্গ সুত তাহাকে দেখিতে ॥ হেন কালে রতি । রতি নাপারি করিতে। বিশেষত: মাতা দুঃখী অঃমি না রেখা'তে " " দেখিব গোলোক নাথে পাৰ্ব্বতীর কোলে । না করিব রতি ক্রিয়া হেন যাত্রা কালে । এত বলি শনৈশ্চর করিল গমন । শণির রমণী স্বান করিল তখন । রক্ষা ঋতু না করিয়া যাইবা যথায় । যারে দেখ তার যেন মুণ্ড থ’সে যায় ॥ রাগে রাগে গেল শণি ক্রোধ ছিল মনে । রমণীর প্রতি ক্রোধ ছিল যে তথ:ন ॥ ক্রোধ ভরে যায় শণি শিবের ভবন : আই ক্রোধে পাৰ্ব্বতীর পুত্রকে দর্শন । মুণ্ড খণ্ড হয়ে গেল গণ্ডক পৰ্ব্বতে । কীট রূপে শণি যায় মুণ্ড সাথে সাথে ॥ কীটেতে পৰ্ব্বত কাটে খণ্ড খণ্ড শীলে। খণ্ড শীলা পড়ে গণ্ডকী নদীর জলে । চক্র ৰিশেষেতে তায় হয় শালগ্রাম । শালগ্রাম রূপেতে গোলোক নাথ হ্যাম। যদ্যপিও এই ভাব যাগে কারু মনে । গোলোক নাথের মুণ্ড ধ'সে গেল কেনে । একে ত শণির নারী তাহার কোপেতে । আর ত শণির দৃষ্টি হইল তাহাতে ॥ . তার মধ্যে আরো আছে পূৰ্ব্বের ঘটনা। প্রভু বুঝে হরি ভক্তের মনের বাসন ॥ ভগবানের কাজ এই এক কাৰ্য্য হ'তে । স্বয়ংএর কত কাঙ্গ ঘটে সে কাজেতে। ব্ৰহ্মলোকে যাইয়। দুৰ্ব্বাসা মুনিবৰ । পারিজাত মাল! পাইলেন উপহার ॥ ব্ৰহ্ম বলে এই মাল| যার গলে দিবে। অগ্রপূজণীয় সেই হইবেক ভবে ; পেয়ে হার মুনিবর ভাবে মনে মন। এই মালা মম গলে নাহৰু শোভন । বনে থাকি বনফুল করি বে আহার। তপস্বীর কভু নাহি সাঙ্গে এই হার । এত ভাবি হার দিল ইন্দ্রদেবরাজে। অহংকারে মত্ত ইন্দ্রমাল দিল গঙ্গে ॥ গজের গলায় মালা বাপাইয়া শুণ্ড । ছিড়িয়া গলার হার করে খণ্ড খণ্ড । ছেড়া হার পথে দেখি কুপিল দুৰ্ব্বশি। ধ্যানস্ত হইয়া সব জানিল দুর্দশ ॥ মুনিবর মনেতে পাইল বড় কষ্ট । ইন্দ্রকে দিলেন শুাপ হও লক্ষ্মীভ্রষ্ট ॥ মালার মাহাত্মা আছে যে পরিবে গলে । অগ্রপূজ্য হবে সেই ব্ৰহ্মদেব বলে । ভবাণীর পুত্র মুণ্ড খণ্ড বেই কালে। চিন্তান্বিত হ’ল বড় দেবতা সকলে। নন্দীকে দিলেন আজ্ঞ শীঘ্ৰ চলৈষাও । উত্তর শিয়রী যীরে শয়নেতে পাও ৷ কাটিয়া তাহার মুণ্ড অনেব। হ্রায় । সেই মুণ্ড যোড়া দিব পুত্রের গলায় । নন্দী গিয়া শ্বেতকরী শয়ন দেখিল । উত্তর শিয়রী দেখি সে মুণ্ড ছেদিল । সেই মূণ্ড দেবগণ ধরি সকলেতে । ミ*為 স্বন্ধে লাগাইয়া দিল শৈল স্থত স্থতে ॥ ভগবান পুত্ৰ হ’ল জনক মহেশ । গজানন গণ শ্রেষ্ঠ নাম যে গণেশ ॥ হেন পুত্র কোলে নিয়া বসিল ভবাণী । জন্ম-মৃত্যুহরী তারা গণেশ জননী । আর এক আছে তার হৈবের ঘটনা। শংখচূড় দৈত্য করে দেবতা তাড়ন ॥ দৈত্য ভয় ভীত সব দেবতা হইল । দেবতার স্তবে শিব যুদ্ধেতে চলিল ॥সপ্ত রাত্রি সপ্ত দিন যুদ্ধ করে ভোলা। যুদ্ধ করে শংখামুরে জিনিতে নারিলা ॥ দেবগণ স্তব করে বিষ্ণুর সদন। কর প্রভু তুলসীর সতীত্ব ভঞ্জন । t