পাতা:সময় অসময় নিঃসময় - তপোধীর ভট্টাচার্য.pdf/২৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

করেন এবং অন্তর্বস্তু ও প্রকরণে সময় ও পরিসরের ভেতরকার শূন্যায়তনগুলি খনন করেন—তাতে কেবল আধুনিকতাবাদী অনন্বয়ের বিন্যাস থাকে না। তেমনি মলয় রায়চৌধুরী, কমল চক্রবর্তী, উদয়ন ঘোষদের সন্দর্ভেও দেখি কৃষ্ণবিবরের নানা আয়তন। সব মিলিয়েই তৈরি হয় কালবেলার ভ্রমকথা।

 মোহিনী আড়াল মানুষের স্বাচিত নিয়তি: একথা লিখব না। বিভ্রমের সামাজিক ও ঐতিহাসিক উৎস শনাক্ত করাই কবি-লিখিয়েদের দায় এখন। আজকের বিজ্ঞাপন-সর্বস্ব দুনিয়ায় প্রতিটি বস্তুই আগ্রাসী পুঁজির Fetish হয়ে দাঁড়িয়েছে (তদেব: ১৫২)। ছলনাজালে সৃষ্টির পথ আরো আকীর্ণ এখন; তাই বলে কি ভ্রমকথার বৈধতা খুঁজবে সাহিত্য?

 চুল-দাঁত-নখ-চোখ-ঠোট-ত্বক এবং অবশ্যই শরীরী (নারী শরীরের) অনুষঙ্গ অধিবাস্তবের নানা বিভঙ্গ। আমাদের নিভৃত প্রেম, দাম্পত্য কিংবা মাতৃত্ব ও বন্ধুতা সমস্তই এসে দাঁড়িয়েছে বিশ্বজোড়া হাটের হট্টরোলের মাঝখানে। এইসবই এখন বাস্তবের চেয়েও বেশি বাস্তব। এই প্রেক্ষিতে তবু কবি-লিখিয়েদের ভাবতে হচ্ছে লেখার নতুন প্রকরণের কথা, জীবনের নতুন ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ও তাৎপর্যের কথা, সত্তার অস্তিত্বতাত্ত্বিক ও জ্ঞান-তাত্ত্বিক সন্ধানের কথা। কিন্তু কিছু দূর গিয়েই যেন চোরাবালিতে হারিয়ে যাচ্ছে সব। এখন যেন আকারহীন, চরিত্রহীন, বর্ণহীন, লক্ষ্যহীন স্রোতের তোড়ে মুছে যাচ্ছে সব। আলো এবং অন্ধকারের দ্বৈততা সম্পর্কেও যখন দ্বিধা দেখা দেয়, কী করবেন ছোট পত্রিকার আপসহীন যোদ্ধারা?

 যেভাবে যন্ত্রবদ্ধ জীবনে সংকেত, চিহ্ন ও প্রতিবিম্বের তোড়ে ভেসে যাচ্ছে সব কিছু, বাস্তবতা ও সম্ভাব্যতার সমস্ত আকল্পই অনিকেত হয়ে পড়ছে। ঘরে-ঘরে ঢুকে পড়ছে আজ লোভ-লালসা বিকৃত আকাঙ্ক্ষার মারীবীজ। অনতিসাম্প্রতিক কৌন বনেগা ক্রোড়পতির নির্লজ্জ জুয়াখেলা প্রচারমাধ্যমের দৌলতে অধিবাস্তবের নগ্ন আগ্রাসনকে অবারিত করে তুলেছে। এ তো আমাদের কালবেলারই অভিব্যক্তি যখন এদেশের যাবতীয় অসংহতি যাদুবলে মুছে দেয় রাঘববোয়াল রুপার্ট মাড়ুকের সাইবার মাদক। ছায়াছবির মায়জগতের সম্মোহক ব্যক্তিত্ব হ্যামলিনের বাঁশিওয়ালার চেয়েও ঢের বেশি দ্রুততায় ও দক্ষতায় নিয়ন্ত্রণ করে ভারতবাসীর মগজ ও সময়। বিনোদনের রাজনীতি বিভ্রান্ত দেশবাসীদের বুঝিয়ে দেওয়ার দায়িত্ব কি এই ক্রান্তিকালের সাহিত্য-যোদ্ধারা এড়িয়ে যেতে পারেন? কে অস্বীকার করতে পারে যে ‘The cool universe of digitality has absorbed the world of metaphor and metonymy'!

২৩