পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/১২৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্ত্রীরামকৃষ্ণ সৰ্ব্বধৰ্ম্ম সমন্বয়ে—বলরামের পিতার সঙ্গে কথা ১১১ অশ্রদ্ধা বা ঘৃণা করতে নাই। বেদে তাকেই বোলছে সচ্চিদানন্দঃ ব্ৰহ্ম ; ভাগবতাদি পুরাণে তাকেই বোলছে সচ্চিদানন্দঃ কৃষ্ণ,তন্ত্ৰে ব’লছে সচ্চিদাননীঃ শিবঃ , সেই এক সচ্চিদানন্দ। ጙታ “বৈষ্ণবদের নানা থাকৃ থাকু আছে। বেদে তাকে ব্ৰহ্ম বলে , একদল বৈষ্ণবেরা তাকে বলে আলেক নিরঞ্জন। আলেক অর্থাৎ যাকে লক্ষ্য করা যায় না, ইন্দ্রিয়ের দ্বারা দেখা যায় না। তারা বলে, রাধা আর কৃষ্ণ আর আলেকের দুটা ফুট । “বেদান্ত মতে অবভার নাই, বেদাস্তবাদীরা বলে রাম, কৃষ্ণ, এরা সচ্চিদানন্দ সাগরের দুটা ঢেউ ।” “এক বই ত দুই নাই ; যে যা বলে, যদি আন্তরিক ঈশ্বরকে ডাকে, তার কাছে নিশ্চয় পহুছিবে। ব্যাকুলত থাকলেই হ’ল।” o স্ত্রীরামকৃষ্ণ ভাবে বিভোর হইয়া ভক্তদের এই সকল কথা বলিতেছিলেন । এইবার একটু প্রকৃতিস্থ হইয়াছেন ও বলিতেছেন, ‘তুমি বলরামের বাপ ? [ বলরামের পিতাকে শিক্ষা–“ব্যাকুল হও” ] সকলে একটু চুপ করিয়া আছেন ; বলরামের বৃদ্ধ পিতা নিঃশব্দে হরিনামের মালা জপ করিতেছেন । ত্রীরামকৃষ্ণ ( মাষ্টার প্রভৃতির প্রতি )—আচ্ছ, এরা এত জপ করে, এত তীর্থ করেছে, তবু এ রকম কেন ? যেন আঠার মাসে এক বৎসর ! “হরিশকে বললুম, কাশী যাওয়া কি দরকার যদি ব্যাকুলভ না থাকে। ব্যাকুলত থাকলে, এইখানেই কাশী।” .' “এত তীর্থ এত জপ করে, হয় না কেন ? ব্যাকুলত নাই। ব্যাকুল হয়ে ডাকলে তিনি দেখা দেন।” ■ “যাত্রার গোড়ায় অনেক খচমচ খচমচ করে ; তখন শ্ৰীকৃষ্ণকে দেখা যায় না ! তারপর নারদ ঋষি যখন ব্যাকুল হয়ে বৃন্দাবনে এসে বীণা বাজাতে বাজাতে ডাকে আর বলে, প্রাণ ছে গোবিন্দ মম জীবন " তখন কৃষ্ণ আর থাকতে পারেন না। রাখালদের সঙ্গে সামনে আসেন, আর বলেন, ‘খুবলী রও ! ধবলী রও’ ।”